Thursday , 12 December 2019

Gazi Online School

Welcome to Gazi Online School. One of the largest Outstanding online learning platforms in Bangladesh. Click Menu to find your expected articles. Stay with Gazi Online School for better learning.

বাগধারা

বাগধারাঃ

বাংলা ভাষায় এমন কতকগুলো শব্দ বা বাক্যাংশ রয়েছে যেগুলো শাব্দিক অর্থ প্রকাশ করে না, বৈশিষ্ট্যময় কোনো ভাব প্রকাশ করে। এ জাতীয় শব্দ বা বাক্যাংশকে বাগ্ধারা বলে। বাগ্ধারা প্রয়োগ বা ব্যবহার জানা খুবই প্রয়োজন। কারণ, এগুলোর সঠিক ব্যবহারে ভাষা হয়ে ওঠে শ্রুতিমধুর, সৌন্দর্যসমৃদ্ধ সাবলীল ও গতিময়।
নিচের কতিপয় বাগ্ধারার ব্যবহার দেখানো হলো ঃ




হ’ সিরিয়াল

হালে পানি পাওয়া = (উতরিয়ে যাওয়া) এ সামান্য টাকায় হলে পানি পেলে হয়।
হাতে খড়ি = (শিক্ষার সূচনা) তানিয়ার আজ হাতে খড়ি হলো।
হাটে হাঁড়ি ভাঙ্গা = (গোপনীয়তা প্রকাশ)  তাড়াতাড়ি চলে আস, কথা বলো না, তাহলে হাটে হাঁড়ি ভেঙ্গে দেবো।
হাতটান = (চুরির অভ্যাস) মালেকের হাতটানের অভ্যাস এখনও গেল না।
হাড়ে হাড়ে চিনা = (মর্মান্তিকভাবে চিনা)  তুমি আজমলকে না চিনলেও আমি ওকে হাড়ে হাড়ে চিনি।
হাতে কলমে = (প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা)  হাতে কলমে শিক্ষাই প্রকৃত শিক্ষা।
হাতের পাঁচ = (শেষ সম্বল)  হাতের পাঁচ এর ক’টি টাকা দিয়েই আমাকে মাসের বাকি দিন চলতে হবে।
হাত করা = (বশে রাখা)  নির্বাচনে জয়লাভ করতে হলে কলিম মাতুব্বরকে যে করেই হোক হাত করতে হবে।

ষ,স’ সিরিয়াল

ষোল আনা = (পুরোপুরি)  সারা বছর না পড়ে ষোল আনাই ভুল করেছি।
ষাঁড়ের গোবর = (অপদার্থ )ষাঁড়ের গোবর ছেলেটাকে নিয়ে হাই সাহেব বিপদে পড়েছেন।
সাত-সতেরো = (নানাবিধ)  আজ আর সাত-সতেরো বলে কাজ হবে না – আমি আমার পাওনা টাকা চাই।
সাত-পাঁচ ভাবা = (নানারকম চিন্তা) সাত-পাঁচ ভেবে শেষে আর নোমানকে কথাটা বলা হয় নি।
সোনায় সোহাগা = (সুন্দর মিল) যেমন বর, তেমনি কনে, এ যেন সোনায় সোহাগা।
সাক্ষী গোপাল = (ব্যক্তিত্বহীন, নিষ্ক্রিয়)  করিম সাক্ষী গোপল, কাজ চালায় মধু  জহির
সুখের পায়রা = (সুসময়ের বন্ধু)  আমার বন্ধুরা সব সুখের পায়রা, দুঃসময়ে কারো দেখা পাওয়া ভার।
সাত খুন মাফ = (গুরুতর অপরাধেও অব্যাহতি)  নোমানের মামা মন্ত্রি , তার সাত খুন মাফ।
সেয়ানে সেয়ানে = (যোগ্যে যোগ্যে)  এবার সেয়ানে সেয়ানে লড়াই, দেখা যাক কে হারে, কে জিতে।
সাপও মরে লাঠিও না ভাঙে = (বিনা ক্ষতিতে লাভ, বিনা খরচেই কার্যোদ্ধার) তাকে কৌশলে এমন শায়েস্তা করতে হবে যেন, সাপও মরে লাঠিও না ভাঙে।
সুখে থাকতে ভূতে কিলায় =  ( স্বেচ্ছায় দুঃখ বরণকারী)  চিন্তা ভাবনা না করেই রাশেদ ভালো চাকরিটা ছেড়ে দিল, আসলে সুখে থাকলে ভূতে কিলায়।

য,র,ল,শ’ সিরিয়াল

যক্ষের ধন = (কৃপণের ধন)  যক্ষের ধনের মতো সারাজীবন বিষয় সম্পত্তিতো আগলে রাখলে এবার কিছু দান-দক্ষিণা কর।
যম যন্ত্রণা = (মৃত্যু-যন্ত্রণা)  পুত্রের মৃত্যুতে মা-বাবা যম যন্ত্রণা ভোগ করছেন।
রাবণের চিতা = (চির অশান্তি)  অধিক জনসংখ্যায় রহিমের সংসারটা এখন রাবণের চিতায় পরিণত হয়েছে।
রাঘব বোয়াল = (অত্যন্ত লোভী ) দায়িত্বহীন ব্যক্তিরাই যদি রাঘব বোয়াল হয় তবে দেশের উন্নতি হবে কী করে।
রগচটা = ( যে একটুতেই রাগে)  রগচটা লোকের সাথে কাজ করে কোনো শান্তি নেই।
রুই-কাতলা =  (পদস্থ বা নেতৃস্থানীয়) লোক জনগণের টাকার সিংহভাগ রুই-কাতলাই ভোগ করছে।
লাটে ওঠা = (সর্বনাশ হওয়া ) যেভাবে বাকি দিতে শুরু করেছে ব্যবসা আর লাটে ওঠতে বাকি নেই।
লালবাতি জ্বালানো = (ধ্বংস হওয়া)  শেষ পর্যন্ত ব্যাংকটা লালবাতি জ্বালালো।
লেজে পা পড়া = (স্বার্থে আঘাত লাগা)  অনেক বন্ধুত্ব দেখছি, লেজে পা পড়ার পর দু’দিনও টেকে না।
শনির দৃষ্টি = (কু দৃষ্টি)  শনির দৃষ্টি না হলে এক মাসের মধ্যে কেন পালের সবগুলো গরু মারা যাবে।
শাঁখের করাত = (উভয় সঙ্কট)  সত্য বললে বাবা বিপদে পড়েন, আর মিথ্য বললে মা বিপদে পড়েন- আমি পড়েছি শাঁখের করাতে।
শাপে বর = (অকল্যাণ হতে কল্যাণ)  ম্যানেজার সাহেব নোমান শাস্তি না দিয়ে দিলেন প্রমোশন, একেই বলে শাপে বর।
শাক দিয়ে মাছ ঢাকা = (গুরুতর কলঙ্ক ঢাকার চেষ্টা)  সত্য কথা বলেছি বলে রুষ্ট হয়েছো – শাক দিয়ে মাছ আর কত দিন ঢাকবা?

ভ,ম’ সিরিয়াল

ভরাডুবি = (সর্বনাশ) দোকানে আগুন লেগে রহিম মিঞার ভরাডুবি হয়েছে।
ভূতের বেগার খাটা = (বৃথা পরিশ্রম করা) সংসারে ভূতের বেগার খেটে খেটে জীবনটা গেল, ফল কিছুই হলো না।
ভূঁইফোড় = (নতুন, অর্বচীন)  ভূঁইফোড় বড় লোকদের অহঙ্কারের শেষ নেই।
ভিজা বিড়াল = (নিরীহ অথচ কপটচার) লোকটা সদারপী কিন্তু আসলে ভিজা বিড়াল।
ভিটায় ঘুঘু চরানো = (সর্বনাশ) মিজান সাহেব  ভোটে ফেল করে আতর আলীর বাড়িতে ঘুঘু চড়ালেন।
ভাতে মারা = (না খাইযে কষ্ট দেওয়া)  কাজের ঝিকে অনেকেই হাতে না মেরে ভাতে মারে।
মণিকাঞ্চন যোগ = (উপযুক্ত মিলন)  যেমন বর তেমনি কনে, যাকে বলে মণিকাঞ্চন যোগ।
মাটির মানুষ = (সরল প্রকৃতির) তারেক সাহেব একজন মাটির মানুষ, সচারাচর এমন লোক দেখা যায় না।
মাছের মার পুত্রশোক = (কপট বেদনাবোধ) ভোটের আগে চিহ্নিত অসাধু ব্যক্তিরা জনগণের জন্যে দরদ দেখাচ্ছে – এ যেন মাছের মার পুত্রশোক।
মগের মুল্লুক = (অরাজকতা, জুলুমের রাজত্ব)  সন্ত্রাসীরা দেশটাকে মগের মুল্লুকে পরিণত করেছে।
মানিক জোড় = (পরম বন্ধু) কণা আর মণির মধ্যে মানিক জোড় সম্পর্ক।
মুখে চুনকালি দেওয়া = (কলঙ্ক দেওয়া)  দুশ্চরিত্র ছেলেটা বংশের মুখে চুনকালি দিয়েছে।
মিছরির ছুরি = (মিষ্টি কথায় অনেক আঘাত) তার কথা মিছরির ছুরির মতো এখনো আমাকে যন্ত্রণা দেয়।

প,ফ,ব’ সিরিয়াল

পটল তোলা = (মরা)  নৌকাডুবীতে অনেকেই পটল তুলেছে।
পুকুর চুরি = (বড় রকমের চুরি) ব্রিজটা ভেঙ্গে পড়বে না কেন , কন্ট্রাক্টর যে পুকুর চুরি করেছে।
পোয়াবারো = (সুসময়) কর্তা বাড়িতে নেই বলে চাকরদের পোয়াবপারো।
পাকা ধানে মই দেওয়া = (বিপুল ক্ষতি করা)  কি দোষ করেছিলাম, তুমি যে আমার পাকা ধানে মই দিলে।
পুঁটি মাছের প্রাণ = (ক্ষীণ প্রাণ) পুঁটি মাছের প্রাণ নিয়ে সৈন্যদলে না যাওয়াই ভালো।
ফাঁপিয়া ওঠা = (ধনী হওয়া)  চোরাকারবারী করে যুদ্ধের সময়ে অনেকে ফেঁপে ওঠেছে।
ফোড়ন দেওয়া বা কাটা = ( খোঁচা দেওয়া)  বিয়ের আসরে করিম বারবার একটি মেয়েকে ফোড়ন দিচ্ছেল।
ফাঁদে পা দেওয়া = (ষড়যন্ত্রে পড়া)  দুষ্টু লোকের মিষ্টি কথায় সে এখন ফাঁদে পা দিয়েছে।
বালির বাঁধ = (ক্ষণস্থায়ী )‘বড়র পিরীতি বাঁলির বাধ, ক্ষণে হাতে দড়ি ক্ষণে চাঁদ।’



বকধার্মিক / বিড়াল তপস্বী = (ভন্ড)  ব্যবহারে তাকে সাধু মনে হলেও আসলে সে একজন বকধার্মিক / বিড়াল তপস্বী।
বাড়া ভাতে ছাই = (আশা ভঙ্গ)  চাকরির আশ্বাস দিয়ে আকরাম সাহেব চাকরি দিলেন না, এ যেন বাড়া ভাতে ছাই
বা হাতের ব্যাপার  = (ঘুষ) অফিস-আদালতে বা হাতের ব্যাপার ছাড়া কোনো কাজই হয় না।
বাঘের দুধ = (দুষ্প্রাপ্য ) বস্তু কথায় বলে টাকা হলে বাঘের দুধও মেলে।
বুকের পাটা = (সাহস)  ছেলেটার বুকের পাটা আছে বৈকি, হইজাকারটাকে হাতে নাতে ধরে ফেলেছে।
বুদ্ধির ঢেঁকি=  (বোকা)  তোমার মতো বুদ্ধির দিয়ে ঢেঁকি দিয়ে আমার কোনই উপকার হবে না।
ব্যাঙের আধুলি = (অতি সামান্য ধন)  তোমার এ ব্যাঙের আধুলিতে আমার কোনই উপকার হবে না।
ব্যাঙের সর্দি = (অসম্ভব)  জেল খাটা দাগীকে দেখাচ্ছে পুলিশের ভয়, ব্যাঙের আবার সর্দি।
বিসমিল্লায় গলদ =  (গোড়ায় গলদ ) অঙ্কের ফল মিলবে কী, বিসমিল্লায় গলদ রয়েছে।
বিনা মেঘে বজ্রাঘাত = (আকস্মিক দুঃসংবাদ)  পুত্রের মৃত্যু সংবাদ তার কাছে বিনা মেঘে বজ্রাঘাতের মতো মনে হলো।
বাঘের মাসী = (নির্ভীক)  বাঘের মাসীর মতো সত্য কথা বলবে এতে ভয় কিসের।

দ,ধ,ন’ সিরিয়াল

দা- কুমড়া সম্বন্ধ =(শত্রুভাব) জমি নিয়ে রহিম ও করিম দু’ভাইয়ের মধ্যে দা-কুমড়া সম্বন্ধ।
দুধের মাছি = (সুসময়ের বন্ধু)  টাকা থাকলে দুধের মাছির অভাব হয় না।
দু’মুখো সাপ = (যে দু’রকম কথা বলে)  তাকে আমার চিনতে বাকি নেই, সে একজন দু’মুখো সাপ।
দু’কান কাটা = (নির্লজ্জ)  দু’কান কাটা লোকেরা সব কিছুই করতে পারে।
দু’টানায় পড়া = (উভয় সঙ্কট)  ঘনিষ্ঠ দু’বন্ধু একই পদে নির্বাচন করছে। কাকে যে ভোট দেব, ভারি দু’টানায় পড়েছি।
দর কষাকষি = (দামাদামি করা)  রহিম মিয়া দর কষাকষিতে ওস্তাদ।
ধামাধরা = (চাটুকারিতা)  ধামাধরা লোকের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে।
ধরাকে সরা জ্ঞান করা = (তুচ্ছ জ্ঞান)  টাকার গর্বে অনেকেই ধরাকে সরা জ্ঞান করে।
ধরি মাছ না ছুঁই পানি = (কৌশলে কাজ উদ্ধার করা) তোমার ধরি মাছ না ছুঁই পানি – এই রীতি আমি পছন্দ করি না।
ননীর পুতুল = (শ্রমবিমুখ / অপদার্থ)  তুমি দেখছি ননীর পুতুল, সামান্য পরিশ্রমেই একেবারে গলে যাচ্ছ।
নয় ছয় = (বিশৃঙ্খলা) সারা ঘরে জিনিস পত্রগুলো এমন নয় ছয় করে রেখেছো কেন?
নাকে তেল দিয়ে ঘুমানো = (নিশ্চিত থাকা)  ঘরে চাল-ডাল নেই আর তুমি দেখছি নাকে তেল দিয়ে ঘুমাচ্ছ।

ত,থ’ সিরিয়াল

তালকানা = (কান্ডজ্ঞানহীন)  তালকানা লোকের ওপর কাজের দায়িত্ব দিয়ে শান্তি নেই।
তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠা = (অতিশয় ক্রুদ্ধ হওয়া)  পাওনা টাকা চাইতেই তিনি তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠলেন।
তাসের ঘর = (ক্ষণস্থায়ী) সামান্য ভুলের জন্য তার সাজানো সংসার তাসের ঘরের মতো ভেঙ্গে গেল।
তিলকে তাল করা = (অতিরঞ্জিত করা)  যা দেখেছ তাই বল, তিলকে তাল করা ঠিক হবে না।
তুষের আগুন = (নিরন্থর দগ্ধকারী)  দুঃখ মাতৃ বিয়োগে সন্তানের বুকে তুষের আগুন জ্বলছে।
তামার বিষ = (অর্থের কু-প্রভাব) বিদেশি পয়সায় রহিজুদ্দিনকে তামার বিষ ধরেছে, মানুষকে মানুষ জ্ঞান করে না।
তুলসী বনের বাঘ = (ভন্ড) করিমকে দেখতে সাধুর মনে হলে কি হবে, আসলে সে তুলসি বনের বাঘ।
তেলা মাথায় তেল দেওয়া = (যার আছে তাকে আরও দেওয়া) সবাই তেলা মাথায় তেল দেয় – গরিবকে কেউ দেখে না।
থ মেরে যাওয়া = (কিংকর্তব্যবিমূঢ় হওয়া)  ছেলের হাতে মদের বোতল দেখে আমি থ মেরে গেলাম।
থই থই করা = (পরিপূর্ণ হয়ে থাকা) ক্রমাগত বৃষ্টিতে নদী থৈ থৈ করছে।

ড,ঢ’ সিরিয়াল

ডুমুরের ফুল=  (অদৃশ্য বস্তু) চাকরি পেয়ে ডুমুরের ফুল হয়ে ওঠলে যে -দেখাই যায় না।
ডান হাতের ব্যাপার = (আহার) একটু অপেক্ষা কর ডান হাতের ব্যাপারটা সেরে আসি।
ডুবে ডুবে জল খাওয়া = (গোপনে কাজ করা)  লোকটা বাইরে সাদাসিধে হলেও আসলে ডুবে ডুবে জল খায়। মস্ত বড় চোরাকারবারি।
ঢাক ঢাক গুড়গুড় = (কপটতা ) ঢাক ঢাক গুড়গুড় করে আর কত দিন চলবে এবার সুপথে আস।
ঢাকের কাঠি = (তোষামোদে)  মন্ত্রী সাহেবের ঢাকের কাঠি হয়ে মনির শেষ গুছিয়ে নিচ্ছে।
ঢাক পিটানো = (প্রচার করা ) সাবধান! রহিমের কাছে কোনো গোপন কথা বলো না বাইরে গিয়ে ঢাক পিটাবে।

ট,ঠ’ সিরিয়াল

টনক নড়া = (সজাগ হওয়া) ছেলে পরীক্ষায় ফেল করাতে করিম সাহেবের টনক নড়ল।
টাকার গরম = (ধনের অহঙ্কার)  টাকার গরমে ফোরকান আলী মাটিতে পা ফেলেন না।
টাকার কুমির = (ধনী)  সুজন বেপারী টাকার কুমির বটে কিন্তু দানের বেলায় খুবই কৃপণ।
টইটুম্বুর = (ভরপুর)  তিন ছেলেই বিদেশে, মতিন সাহেবের সংসার এখন টইটুম্বুর।
ঠোঁট কাটা = (স্পষ্টভাষী) রহিমের মুখে কিছুই আটকায় না, সে একেবারে ঠোঁট কাটা।
ঠাঁট বজায় রাখা = (চাল ঠিক রাখা) স্বল্প আয়ে ঠাঁট বজায় রাখা কঠিন।

ছ,জ,ঝ’ সিরিয়াল

ছ’কড়া ন’কড়া = (সস্তা)  আমদানি বেশি হওয়ায় বাজারে আজ ইলিশ মাছ ছ’কড়া ন’কড়া দরে বিকোচ্ছে।
ছিনিমিনি খেলা = (অপচয় করা) বাজে ছেলের হাতে টাকা দিলে সে তো ছিনিমিনি খেলবেই।
ছেলের হাতের মোয়া = (সহজলভ্য) আজ-কাল চাকরি আর ছেলের হাতের মোয়া নয় যে চাইলেই পাবে।
জিলাপির প্যাঁচ = (কুটিল বুদ্ধি) পেটে যে তোমার এত জিলাপির প্যাঁচ তা কে জানত?
জগাখিচুড়ি পাকানো = (বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি ) এমন সহজ অঙ্কটা করতে গিয়ে জগাখিচুড়ি পাকলে কেন?
ঝোপ বুঝে কোপ মারা = (সুযোগ বুঝে কাজ হাসিল করা)  আতিক সাহেব ঝোপ বুঝে কোপ মেরে একদিনেই কাজ সেরে নিলেন।
ঝাঁকের কই = (এক দলের লোক)  করিম হলো ঝাঁকের কই তাকে ধরলেই দলের সবাই ধরা পরবে।
ঝাল ঝড়া = (রাগ মেটানো)  বউয়ের সঙ্গে ঝগড়া করে এসে সুমন সাহেব অফিসের পিয়নদের ওপর ঝাল ঝাড়লেন।

চ’ সিরিয়াল

চাঁদের হাট = (সুখের সংসার)  সবাই কে নিয়ে নীরব সাহেবের সংসার যেন চাঁদের হাট
চোখের বালি = (অপ্রিয়, চক্ষুশূল)  বখাটে ছেলেরা সকলের চোখের বালি হয়।
চোখের পর্দা = (লজ্জা)  তোমার চোখের পর্দা নেই বলে এমন কাজটি করতে পারলে।
চোখে ধুলি দেওয়া = (ঠকানো বা প্রতারণা করা)  মালিকের চোখে ধুলি দিয়ে কর্মচারীটা অনেক টাকা কামিয়ে নিল।
চিনির বলদ = (ফলভোগী)  নয় দশ বছরে এক টাকাও বেতন বাড়ে নি, অথচ চিনির বলদের মতো খেটেই চলছি।
চোখে সরিষার ফুল দেখা = (বিপদে দিশেহারা হওয়া)  বাবার মৃত্যুতে নীরব চোখে সরষে ফুল দেখছে।
চোখের মণি = (প্রিয়) নীরব তার মা বাবার চোখের মণি।
চশমখোর = (নির্লজ্জ)  ছেলেটি একটি চশমখোর।
চোরাবালি = (অদৃশ্য) বিপদ বিপদের সময় চিন্তা ভাবনা করে না চললে চোরাবালিতে তলিয়ে যেতে হবে।

খ,গ,ঘ’ সিরিয়াল

খয়ের খাঁ = (তোষামোদকারী)  তুমি তো বড় সাহেবের খয়ের খাঁ; তোমার তো প্রমোশন হবেই।
খন্ড প্রলয় = (তুমুল কান্ড) সামান্য ব্যাপার নিয়ে দু’প্রতিবেশিতে খন্ড প্রলয় হয়ে গেল।
খাল কেটে কুমির আনা = (বিপদ ডেকে আনা) ব্যবসায় তাকে অংশীদার করে খাল কেটে কুমির এনেছি।
গড্ডালিকা প্রবাহ = (অন্ধ অনুকরণ) গড্ডলিকা প্রবাহে গা ভাসিয়ে চললে জীবনে উন্নতি করা যায় না।
গণেশ উল্টানো = (তুলিয়া দেওয়া)  এক বছর পার না হতেই শহীদ মিঞার পাটের ব্যবসায় গণেশ উল্টালো।
গলগ্রহ = (অকারণে পরের বোঝা হয়ে থাকা)  অল্প দিনেই নীরব বুঝতে পারল যে, সে তার মামীর গলগ্রহ হয়ে আছে।
গোবর গণেশ = (মূর্খ ) ছেলেটি একটি গোবর গণেশ
গোঁফ খেজুরে = (অলস)  গোঁফ খেজুরে লোকের পক্ষে জীবনে উন্নতি সম্ভব নয়।
গোড়ায় গলদ = (শুরুতেই ভুল)  এ অঙ্ক কিছুতেই মিলবে না, করণ গোড়াতেই গলদ রয়েছে।
গুঁড়ে বালি = (আশায় নৈরাশ্য) আশা করেছিলাম বিদেশে যাব, এখন দেখছি গুঁড়ে বালি।
গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল = (ফলপ্রাপ্তির পূর্বেই ভোগের আশা)  চাকরি পাবার আগেই খরচের হিসাব, এ যে দেখছি গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল।
গভীর জলের মাছ = (চালাক)  নীরব অনেক গভীর জলের মাছ, তার সঙ্গে পেরে ওঠা কঠিন।
গোবরে পদ্মফুল = (অস্থানে ভালো জিনিস) গরিবের ঘরে ধনবান ছেলে, এ দেখছি গোবরে পদ্মফুল।
গোল্লায় যাওয়া = (নষ্ট হওয়া) সঙ্গ দোষে অনেক ছেলে মেয়েই গোল্লায় যাচ্ছে।
ঘোড়ারোগ = (মাত্রাতিরেক) পেটে ভাত জুটে না আবার মোটর সাইকেল কিনবে, একেই বলে ঘোড়ারোগ।
ঘোড়ার ডিম = (অবাস্তব বস্তু)  পড়াশুনা না করলে পরীক্ষায় ঘোড়ার ডিম পাবে।
ঘাটের মরা = (অতিবৃদ্ধ)  টাকার লোভে জমির আলী মেয়েটিকে ঘাটের মরার হাতে তুলে দিল।

ক’ সিরিয়াল

কলুর বলদ = (এক টানা খাটুনি) কলুর বলদের মত সংসারের পেছনে সারাজীবন খাটলাম কিন্তু লাভের বেলায় কিছুই পেলাম না। ।
কপাল ফেরা = (অবস্থা ভালো হওয়া) লটারিতে পাঁচ লক্ষ টাকা পেয়ে নীরবের কপাল ফিরেছে।
কড়ায় গন্ডায় = (পুরোপুরি) হিসেব কড়ায় গন্ডায় আমার পাওনা বুঝিয়ে দিন।
কান খাড়া করা = (সতর্ক হওয়া)  পাতার র্মর্ম শব্দে শিকারী কান খাড়া করলেন।
কূপমন্ডূক = (সীমাবদ্ধ জ্ঞান) কূপন্ডূক লোক হয়েছে স্কুলের সভাপতি, শিক্ষার উন্নয়ন কী করে সম্ভব?
কেতাদুরস্ত = (বাইরে পরিপাটি) বিদ্বান না হলেও লোকটি পোশাকে-আশাকে কেতাদুরস্ত।
কথায় চিড়া ভিজা বিনা = (ব্যয়ে কার্য সাধনের চেষ্টা) কেবল কথায় চিড়া ভিজে না, কাজটার জন্য নগদ কিছু ব্যয় কর।
কান পাতলা = (যে সবকথাই বিশ্বাস করে)  নীরব একটি কান পাতলা ছেলে, যে যা বলে তা-ই বিশ্বাস করে।
কুল কাঠের = (অঙ্গার তীব্রজ্বালা)  ছেলের অকাল মৃত্যুতে বৃদ্ধ মা-বাবার অন্থরে কুল কাঠের অঙ্গার জ্বলছে।
কৈ মাছের প্রাণ = (যে সহজে মরে না)  চোরটার কৈ মাছের প্রাণ, না হলে এত মার খেয়েও বেঁচে গেল।
কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলা = (শত্রু দ্বারা শত্রুনাশ) রহিম করিমের বিরুদ্ধে তার ভাইকে লাগিয়ে দিয়ে কাঁটা দিয়ে কাঁটা তুলতে চেয়েছিল।
কেউকেটা = (সমান্য, নগন্য লোক)  নীরবকে কেউকেটা ভেবে ওর সঙ্গে লাগতে যেয়ো না, শেষে বিপদে পড়বে।
কাঠের পুতুল = (নির্বাক, আসর)  মীরজাফর যুদ্ধ না করে কাঠের পুতুলের মতো দাঁড়িয়ে রইলেন।
কেঁচো খুঁড়তে সাপ = (সামান্য থেকে গুরুতর ব্যপার)  চোরের পক্ষে সাক্ষ্য দিতে এসে নিজেই চোর সাব্যস্ত হলো, এ দেখছি কেঁচো খুঁরতে সাপ।
কেঁচে গন্ডুষ করা = (পুনরায় আরম্ব) এক মাসের অনভ্যাসে সব অঙ্ক ভুলে গেছি আবার কেঁচে গন্ডুষ করতে হবে।
কাঁচা পয়সা = (নগদ, প্রচুর উপার্জন)  জাপান গিয়ে নীরব প্রচুর কাঁচা পয়সা উপার্জন করেছে।
কথার কথা = (গুরুত্বহীন কথা)  তোমাকে আঘাত দেওয়ার জন্য এ কথা বলি নি, এটা একটা কথার কথা।

এ,ও’ সিরিয়াল

এক মাঘে শীত যায় না = (বিপদ একবারে শেষ হয় না)  আমার সঙ্গে বাট পাড়ি, মনে রেখো এক মাঘে শীত যায় না।
এক চোখা =(পক্ষপাতিত্ব করা) বড় সাহেবের এক চোখা দৃষ্টিতে অফিসের অনেকেই অসন্থষ্ট।
একাদশে বৃহস্পতি = (সৌভাগ্যের বিষয়)  জনাব নীরব সাহেবের এক ছেলে ডাক্তার, এক ছেলে ইঞ্জিনিয়ার- এখন তাঁর একাদশে বৃহস্পতি।
এলাহি কান্ড = (বিরাট ব্যাপার) সুরভীর বিয়েতে এত বড় আয়োজন এ দেখছি এলাহি কান্ড।
এসপার ওসপার = (মীমাংসা)  চুপ করে বসে থেকে সময় নষ্ট করো না। এসপার ওসপার একটা করে ফেল।
এলোপাতাড়ি (বিশৃঙ্খলা) এলোপাতাড়ি কথা না বলে বিষয়টা যৌক্তিক ভাবে দেখার চেষ্টা কর।
ওজন বুঝে চলা (আত্মসম্মান বজায় রাখা) সবারই ওজন বুজে চলা উচিত, নয় তো পদে পদে বিপদ।

ই, ঈ, উ, ঊ’ সিরিয়াল

ইঁদুর কপালে = (মন্দ ভাগ্য) নীরব ইঁদুর কপালে তাই তো চাকরিটা হয়েও হলো না।
ইঁচড়ে পাকা = (অকাল পক্ব) ছেলেটা ইঁচড়ে পাকা তাই সে বড়দের সাথে তর্ক করে।
ইতরবিশেষ (ভেদাভেদ)  আল্লাহর কাছে সবাই সমান, কোনো ইতরবিশেষ নেই।
ঈদের চাঁদ = (অতি আকাক্সিক্ষত) বস্তু সাত বছর পর ছেলে বাড়ি ফেরছে, মা যেন ঈদের চাঁদ দেখলেন।
উত্তম-মধ্যম = (প্রহার) পকেটমারটাকে জনতা উত্তম-মধ্যম দিয়ে বিদায় করলো।
উলুবনে মক্তা ছড়ানো = (অস্থানে মূল্যাবান জিনিস দান)  মূর্খকে ভালো উপদেশ দেওয়া আর উলুবনে মুক্তা ছড়ানো একই কথা।
উভয় সংকট = (দুই দিকের বিপদ)  আমার হয়েছে উভয় সংকট।



আ’ সিরিয়াল

আদায় কাঁচকলায় = (ঘোর শত্রুতা)  নীরবকে এ ব্যাপরে আমি কিছুই বলতে পারবো না ওর সঙ্গে আমার আদায় কাঁচকলায় সম্পর্ক।
আক্কেল সেলামী = (বোকামির দন্ড)  বিনা টিকিটে ট্রেনে চড়ে নোমানকে পঞ্চাশ টাকা আক্কেল সেলামী দিতে হলো।
আকাশ কুসুম = (অসম্ভব কল্পনা) মঙ্গল গ্রহে অভিযান এখন আর আকাশ কুসুম কল্পনা নয়।
আক্কেলগুড়ম = (হতবুদ্ধি হওয়া)  ছেলেটির পথে বসার কথা শুনে আমার আক্কেলগুড়–ম।
আষাঢ়ে গল্প = (অবিশ্বাস্য কাহিনী)  এ সব যে তোমার আষাঢ়ে গল্প, তা আমি আগেই বুঝতে পেরেছি।
আলালের ঘরের দুলাল =  (আদুরে অপদার্থ সন্তান)  আদর দিয়ে ছেলেকে আলালের ঘরের দুলাল কলে তুলেছ এখন ফল ভোগ কর।
আমড়া কাঠের ঢেঁকি = (অপদার্থ)  তোমার মতো আমড়া কাঠের ঢেঁকি দিয়ে এ কাজ হবে না।
আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ = (হঠাৎ বড়লোক) লোকটি হঠাৎ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়ে গেল।
আকাশে তোলা = (অতিশয় প্রশংসা করা) বড় সাহেবকে আকাশে তুলে করিম সাহেব কাজটি উদ্ধার করে নিলেন।
আকাশ পাতাল = (বিশাল ব্যবধান) ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে আকাশ পাতাল ব্যবধান থাকে।
আমতা আমতা করা = (ইতস্তত করা, দ্বিধা করা)  আমতা আমতা না করে সত্য ঘটনা খুলে বল।

অ’ সিরিয়াল

অল্পবিদ্যা ভয়ংকারী = (সামান্য বিদ্যার ভয়ংকার, অহেতুক গর্ব করা) তথ্য-প্রযুক্তি সম্পর্কে সে কিছুই জানে না, আবার দেমাক কত, একেই বলে অল্পবিদ্যা ভয়ংকারী।
অক্কা পাওয়া = (মরে যাওয়া)  জনতার পিটুনিতে পকেটমারটা অক্কা পেয়েছে।
অরণ্যে রোদন = (নিষ্ফল আবেদন)  সমিতির জন্যে কৃপণ জব্বার মিয়ার কাছে টাকা চাঁদা চাওয়া অরণ্যে রোদনমাত্র।
অগস্ত্যযাত্রা = (চিরতরে চলে যাওয়া)  চুরি করে নীরব গ্রাম থেকে অগস্ত্য যাত্রা করেছে।
অর্ধচন্দ্র = (গলাধাক্কা দেওয়া)  কথা না শুনলে শয়তানটাকে অর্ধচন্দ্র দিয়ে বিদায় করে দাও।
অন্ধের যষ্ঠি বা অন্ধের নড়ি = (একমাত্র অবলম্বন) বিধবার একমাত্র সন্তান অন্ধের যষ্ঠি সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেল।
অগাধ জলের মাছ = (সুচতুর ব্যক্তি/ চালাক লোক)  তাকে দেখতে সরল মনে হলেও আসলে সে অগাধ জলের মাছ।
অন্ধকার দেখা = (হতাশ হওয়া)  পরীক্ষায় ফেল করে জব্বার চোখে অন্ধকার দেখাছে।
অমাবস্যার চাঁদ = (দুর্লভ বস্তু)  চাকরি পেয়ে যেন নীরব অমাবস্যার চাঁদ হয়ে পড়েছে।
অকূল পাথার = (ভীষণ বিপদ)  অকূল পাথরে মহান আল্লাহ একমাত্র সহায়।
অনুরোধে ঢেঁকি গেলা = (অসম্ভব কাজ সম্পন্ন করতে রাজি হওয়া)  অনুরোধে ঢেঁকি গেলা আমার পক্ষে সম্ভব নয়, আমি এ কাজ করতে পারব না।
অগ্নিশর্মা = (ভীষন রেগে যাওয়া)  নীরব পড়া না পড়ায় হেড স্যার অগ্নিশর্মা হলেন।
অদৃষ্টের পরিহাস = (ভাগ্যের নিষ্ঠুরতা)  অদৃষ্টের পরিহাসে বাদশাও ফকির হয়।

Share this post.....

Comments are closed.

HBNU